1. alomgirmondol261@gmail.com : দৈনিক আজকের খোলা কাগজ :
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:২৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
নিয়ামতপুরে পহেলা বৈশাখ শুভ নববর্ষ উদযাপন নিয়ামতপুরে দর্শনার্থীর ভিড়ে মুখরিত ঘুঘুডাঙ্গা তালসড়ক নিয়ামতপুরে আলোর দিশারী সংগঠনের কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও শিক্ষার গুনগতমান উন্নয়ন শীর্ষক আলোচনা সভা নওগাঁর নিয়ামতপুরে পারিবারিক কলহের জেরে গৃহবধূর আত্মহত্যা বাংলাদেশ পুলিশ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করলেন আইজিপি নিয়ামতপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে সাংবাদিকদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ জাতীয় ঈদগাহে থাকবে পাঁচ স্তরের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা: ডিএমপি কমিশনার ঈদে ঘরমুখো মানুষের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করতে দায়িত্ব পালন করছে পুলিশ : আইজিপি নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার মধইল বাজারে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা কেন্দুয়ায় তিন জুয়াড়ি গ্রেফতার

ভরা মৌসুমে পেঁয়াজ আমদানি, লোকসানে চাষীরা

নাজমুল
  • প্রকাশিত: রবিবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ২৯৪ বার পড়া হয়েছে

সরকারি উৎসাহে পেঁয়াজের আবাদ বেড়েছে। মাঠ থেকে উঠতে শুরু করেছে নতুন পেঁয়াজ। তবে আমদানিও হচ্ছে বিপুল পরিমাণে। এতে উৎপাদিত পেঁয়াজের প্রত্যাশিত মূল্য পাচ্ছেন না দেশের চাষীরা। ভরা মৌসুমে আমদানি বন্ধের দাবি তাদের।

দেশে বছরে পেঁয়াজের চাহিদা কমপক্ষে ২৫ লাখ মেট্রিক টন। উৎপাদন হয় প্রায় সাড়ে ৩৬ লাখ টন। এর অন্তত ২৫ ভাগ নষ্ট হয়। তাই ভারত, মিয়ানমারসহ কয়েক দেশ থেকে আমদানি করা হয় পেঁয়াজ। সাধারণত দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম যখন অস্বাভাবিক বাড়ে, তখন ভোক্তাদের স্বস্তি দিতে আমদানির অনুমতি দেয় সরকার। গত কয়েক বছর এমন নীতিই ছিল সরকারের। কিন্তু এবার ভরা মৌসুমেও আমদানি হচ্ছে পেঁয়াজ। এতে বাজার পড়ে যাওয়ায় প্রত্যাশিত মূল্য পাচ্ছেন না দেশের চাষীরা। এমন পরিস্থিতিতে লোকসান এড়াতে ভরা মৌসুমে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রাখার দাবি কৃষকদের। কৃষকরা জানান, ফলন পেয়ে কি হবে?এলসি পেঁয়াজে মোকাম ভর্তি, ফলন ভালো হলেও দাম পাচ্ছি না। তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি আমরা। ব্যবসায়ীরা জানান, এবার ফলন ভালো হয়েছে কিন্তু দাম পাচ্ছে না। এজন্য গৃহস্থরা জানান আরেকটু দাম বেশি হলে খরচনা উঠবে। স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিদিনই দেশে ঢুকছে আমদানি-পেঁয়াজের চালান। বন্দরে ইন্দোর ও নাসিক জাতের নতুন পেঁয়াজ ৩৩ থেকে ৩৫ টাকা, আর পুরানো পেঁয়াজ ২১ থেকে ২২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। মোকাম ব্যবসায়ীরা বলেন, “আমাদের কৃষকরা লাভবান হতে পাবেন তার জন্য আমদানি সীমিত করা উচিত। ভারত থেকে এলসি পেঁয়াজ আমদানি হওয়ার কারণে দেশি নতুন পেঁয়াজের দাম চাষীরা তুলনামূলক কম পাচ্ছেন।” হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন বলেন, “ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত আছে হিলি স্থলবন্দরে। তবে আমদানি পূর্বের থেকে অনেক কম। সর্বনিম্ন পর্যায়ে কমে গেছে।” অর্থনীতিবিদরা বলছেন, কৃষকরা উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য না পেলে উৎপাদনে নিরুৎসাহিত হতে পারেন। তাই ভরা মৌসুমে পেঁয়াজ আমদানি না করার পরামর্শ তাদের। কৃষি অর্থনীতিবিদ ড. জাহাঙ্গীর আলম খান বলেন, “বিশেষ করে জানুয়ারি থেকে মার্চ-এপ্রিল এই কয়টা মাস আমদানি বন্ধ রাখা উচিত। যাতে করে কৃষকরা পেঁয়াজের ন্যায্য দাম পায়।” দেশে বিঘাপ্রতি পেঁয়াজ চাষে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়। পচনশীল হওয়ায় সব পেঁয়াজ সংরক্ষণ করা সম্ভব হয় না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

পুরাতন সংবাদ পড়ুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট